বাংলার ঘরে ঘরে অজাচার 8

সুজন ফিক করে হেসে বলল, পিসি তাহলে এতক্ষন সব দেখছিল? কিছু বলল না কেন?

লোপাও হাসলো, আমিও তো সেটাই ভাবছিলাম। তবে ওর হাসি দেখে মনে হচ্ছিল এসব কান্ড দেখে সে অভ্যস্ত। আমি তো লজ্জায় ওর চোখের দিকে তাকাতেই পারছিলাম না।

পিসি তোমার থেকে বয়সে ছোট ছিলো না?

এইজন্যই তো লজ্জা আরো বেড়ে গিয়েছিল। ঘরের বউ হয়ে দরজার ফাঁক দিয়ে এসব দেখছিলাম ছি ছি!!

আমার অবস্থা দেখে সুমি আমার পাশে দাঁড়িয়ে বলল, আরে বৌদি লজ্জা পাচ্ছ কেন এই বাড়িতে এসব কোনো ব্যাপার না। মা আমাদের ছোটবেলা থেকে শিখিয়েছে শরীরের চাহিদা সবার আগে। যে ভাবেই হোক তা মেটাতে হবে নাহলে কোনো কাজে মন বসবে না। আমি মৃদু স্বরে বললাম, তাই বলে মা ছেলে এসব করবে? এসব তো পাপ। সুমি শান্ত স্বরে বলল, দেহ আর মনকে কষ্ট দেয়া আরো বড় পাপ। ওসব কথা বাদ দাও এসো আমরা দুজনে মিলে দেখি ওরা কি করছে।
আমি তখন তাকিয়ে দেখি তোর বাবা অসম্ভব জোরে কোমর নাড়াচ্ছে আর দিদিমা দুই পা দিয়ে ওকে জড়িয়ে ধরেছে। দুজনের শরীর ঘামে একদম ভিজে গেছে। সুমি আমার কানে কাছে মুখ নিয়ে বলল, দেখছ বৌদি দাদা কেমন জোরে জোরে মাকে করছে তার মানে ওর হয়ে আসছে একটু পর একটা দারুণ মজার ব্যাপার হবে খেয়াল করে দেখো।
আমি বোকার মতো তাকিয়ে রইলাম, হঠাৎ শুনতে পেলাম ও বলছে, মা আমার কিন্তু এখনই বের হবে । দিদিমা বললেন, তাড়াতাড়ি সোনাটা বের করে উপরে আয়। তখন দেখলাম যোনির রসে ভেজা লিঙ্গটা বের করে দিদিমার মুখের সামনে ধরল। উনি চোখের পলকে পুরোটা মুখের মধ্যে নিয়ে চুষতে লাগলেন। ও তখন দিদিমার মাথা চেপে ধরে বলছে, মা আহ! মাগো চোষো আরে জোরে চোষো। তোমার মতো কেউ চুষতে পারে না। একসময় দেখলাম ওর শরীর কেঁপে উঠল। বুঝলাম এখন ওর বীর্যপাত হবে। অবাক হয়ে দেখলাম ও লিঙ্গটা ওনার মুখ থেকে বের করল না। তার মানে পুরো বীর্য তাহলে দিদিমার মুখেই ঢেলছে। একটু পর যখন লিঙ্গটা বের বরল দেখি দিদিমার মুখের এক পাশ বেয়ে ঘন বীর্যের ধারা নামছে। উনি আঙ্গুল দিয়ে সেই অবসিস্ট বীর্যটুকু নিয়ে মুখে দিলেন। এরপর জিভ দিয়ে ছেলের লিঙ্গের চারপাশ চেটেপুটে একদম পরিষ্কার করে বললেন, সোনাই এতগুলো রস ঢেলেছিস তোর মায়ের মুখে কিছু তো বৌয়ের জন্য বাচিয়ে রখতে পারতিস। ও বলল, মা আমার রসের ভান্ডার অফুরন্ত। এই সংসারের কেউ এর থেকে বঞ্চিত হবে না বুঝেছ। তখন মা ছেলে দুনেই হেসে উঠল।
“দাদা আজকে অনেকখানি ঢেলেছে মার মুখে” এই বলে সুমি মুখে হাত দিয়ে হেসেই যাচ্ছিল। আমার তখন একই সঙ্গে গা গুলোচ্ছিল আবার কেমন জানি ভালও লাগছিল। আমি কোনমতে বললাম, এই সব নোংরা জিনিস দেখে তোমার হাসি পাচ্ছে সুমি? ও বলল, আরে বৌদি এসব ক্ষেত্রে কিছুই নোংরা না কেবল মনের আর শরীরের তৃপ্তিটাই আসল। তুমি কাল সকালেই দেখবে দুজনে কেমন ফুরফুরে মেজাজে থাকবে। এই কদিন দেখেছ না মা কেমন কথায় কথায় বকা দেয়। কাল তুমি কোনো সাংঘাতিক ভুল করলেও দেখবে মিষ্টি করে হাসি দিবে। আর দাদা তো তোমাকে তিন ডাবল আদর করবে কালকে। হি হি হি !! আমি ওর কোথায় কোনো কৌতুক খুঁজে পেলাম না তবু ভদ্রতা করে হাসি দিয়ে বললাম, অনেক রাত হয়েছে সুমি এখন শুতে যাও, আমারো খুব ঘুম পাচ্ছে। সুমি বলল, ঠিক আছে তবে বৌদি মা আর দাদার এই বিশেষ সম্পর্কটা যত তাড়াতাড়ি মনে নিতে পারবে ততই তোমার জন্য মঙ্গল। এই কথাটা শুধু মনে রেখো। গুড নাইট।
সুমি চলে যাবার পর আমি আবার রুমের ভিতর উঁকি দিয়ে দেখি মা আর ছেলে নগ্ন দেহে একে অপরকে জড়িয়ে ধরে শুয়ে আছে। সেই দৃশ্যটা আমার এত ভাল লাগল যে চোখে জল এসে গেল। তাই আমি মনে মনে ঠিক করলাম এই ব্যপারটা নিয়ে তোর বাবাকে কখনোই কিছু বলব না। তাই আজো তোর বাবা জানে না যে আমি তাদের এই গোপন সম্পর্কটা জানতাম।

সুজন বলল, পরদিন সকালে কি হল?

লোপা বলল, তোর পিসি যা যা বলেছিল তাই হল। দুজনের মুখেই হাসি। দিদিমাতো বিয়ের পর এই প্রথম আমার সাথে হেসে হেসে গল্পগুজব করলেন। তবে ওনার সঙ্গে কথা বলতে আমার খুব অস্বস্তি হচ্ছিল।

কেন মা?

কারণ সকালে স্নান সেরে উনি এত পাতলা একটা সাদা শাড়ী পরেছিলেন যে ওনার শরীরের সবকিছুই স্পষ্ট দেখা যাচ্ছিল। বিশেষ করে আঁচলটা এত সরু ছিলো যে ওনার দুটো বিশাল স্তনের বোঁটাগুলো বার বার বের হয়ে আসছিল। তবুও উনি একদম নির্বিকার। একবার তো ইচ্ছে করে তোর বাবার সামনে আঁচল ফেলে দিলেন তারপর শাড়ী হাটুর উপরে তুলে দুই পা ফাঁক করে কাজ করতে লাগলেন। ভাবখানা এমন যেন ছেলের আবদার মেটাচ্ছেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

বন্ধুর বউ কে দিয়ে জ্বালা মিঠাই আবার টাঁকা ইনকাম করি

আমার বন্ধু টিটু যোক্তরাজ্য থেকে বাংলাদেশে গিয়ে বিয়ে করেছে। আমরা প্রায় আঁট বছর জাবত এক ...