জেনে নিন (মেয়েদের ফিঙ্গারিং করার কৌশল)

ছেলেদের মত মেয়েরাও অনেক সময়ই অনেক হর্নি হয়ে যায় যে তাদের মাস্টারবেট করার প্রয়োজন হয়। মাস্টারবেট হিসাবে মেয়েরা সাধারনত ফিঙ্গারিং করে থাকে। মাস্টার্বেট করে সর্বোচ্চ আনন্দ পাওয়ার জন্য বিভিন্ন ভাবে ফিঙ্গারিং করে যায়। যে ভাবে করে আপনি সবচেয়ে অনন্দ পান, এবং কম্ফোর্টেবল ফিল করেন, সেভাবে ফিঙ্গারিং করুন। ফিঙ্গারিং এ সাহায্য করতে পারে এমন কিছু তথ্যই দেওয়া হল।

**আপনি যখন বেশ হর্নি ফিল করবেন, বা টার্ন অন থাকবেন তখন ফিঙ্গারিং করা শুরু করুন।

**চাইলে ফিঙ্গারিং করার আগে পর্ন বা সেক্স মুভি দেখুন, এরোটিকা পড়ুন।

**বয়ফ্রেন্ড এর সাথে ফোন সেক্স করার সময় বা এরোটিক কথা বলার সময় করতে পারেন ফিঙ্গারিং।

**হর্নি হলে জি স্পটের চার পাশের স্পঞ্জি এরিয়া গুলোতে রক্ত পৌছায়, ফলে জায়গাগুলো স্ফিত হয়। তাতে ফিঙ্গারিং করা সহজ হয় এবং এতে করে আপনি মজাও বেশি পাবেন।

**ফিঙ্গারিং শুরু করার আগে আপনার ব্রেস্ট চাপতে পারেন, নিপল টুইস্ট করতে পারেন। এটি আপনাকে মুড এ আসতে সহায়তা করবে।

**দুই পা ফাক করে কম্ফোর্টেবল কোন পজিশনে বসুন বা শুয়ে পড়ুন। আঙ্গুল লাগান আপনার ভ্যাজায়নাতে। আঙ্গুল একটু ঘষুন ও আস্তে আস্তে চাপুন। ভিজে উঠলে ভেতরে ঢুকান একটা আঙ্গুল। চাইলে সে সময় আঙ্গুলের পরিবর্তে পেনিস কল্পনা করে নিতে পারেন।

**জোরে ঢুকান বের করুন, আস্তে আস্তে দুইটি আঙ্গুল দিন। ভেতরে আঙ্গুল ঘোরান। জি স্পট স্পর্শ করার চেষ্টা করুন। ক্লিটরিস স্পর্শ করুন, টিপুন, সুড়সুড়ি দিন। বেশ মজা পাবেন।

**আঙ্গুল ব্যথা না পাওয়া পর্যন্ত জোরে ঢুকান। এতে স্যাটিস্ফেকশন পাবেন।

**এক হাত দিয়ে ফিঙ্গারিং করার সময় আরেক হাত দিয়ে ব্রেস্ট বা অ্যাস চাপতে পারেন।

**আপনার ভ্যাজায়না ভিজে না উঠার আগে ফিঙ্গারিং শুরু করবেন না, এতে পরে ব্যথা করতে পারে।

**অর্গাসোম লাভ করা পর্যন্ত বা সম্পূর্ণ স্যাটিস্ফাইড হওয়া পর্যন্ত ফিঙ্গারিং করুন।

**মেয়েদের মাস্টার্বেটে আরো মজা পাওয়ার জন্য আছে বিভিন্ন সেক্স টয় , যেমন ডিলডো, ভাইব্রেটর। এসবে লুব্রিক্যান্ট অয়েল মাখিয়ে নিতে পারেন যদি বেশি শুকনো লাগে। এর পর পছন্দ মত ভইব্রেশন দিয়ে মাস্টারবেট করুন।

**জি স্পট খুজে বের করা টা মেয়েদের মাস্টারবেটে বেশ গুরুত্বপূর্ণ। স্পট খুজে সেখানে প্রেস করুন। এতে অর্গাসোম লাভ করতে পারবেন।

**সেক্স টয় বা ডিলডো ব্যাবহারে শরীরের কোন ক্ষতি হয় না। তবে এগুলো না থাকলে আপনি আঙ্গুল দিয়ে ই কাজ চালাতে পারেন।

**অনেকে ডিলডোর অভাব মেটাতে পেন্সিল বা অন্যান্য জিনিস ব্যাবহার করে থাকে। আপনি যদি এসব ব্যাবহারে মজা পান, এবং কম্ফোর্টেবল হন তবে চেষ্টা করে দেখতে পারেন।তবে পেন্সিলের বোথা মাথা ব্যাবহার করুন।জীবানুমুক্ত করে নিন।এর্পর লুব্রিকেন্ট মাখুন।ভাল হয় একটা কন্ডম লাগিয়ে নিলে

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

কিছু প্রয়োজনীয় সেক্স স্টাইল

সাধারণত সব শ্রেণীর মানুষের মধ্যে এমন ধারণা বিদ্যমান যে, মোটা সঙ্গীর সাথে যৌন সঙ্গম করা ...