বন্ধুর বৌ রমা

সাকির বসে বসে ভাবছিল অফিসের কথা। হরতাল মানুষকে পঙ্গু করে দিচ্ছে। জাতীতে আমরা বাঙ্গালী। আমাদের একটি জাতীয় অভ্যাস আছে, তা হল আলস্য। আর সপ্তাহে সরকার দু’দিন বন্ধ দিয়ে এবং বিরোধী দল হরতাল দিয়ে আমাদের অভ্যাস টাকে আরও বৃদ্ধি করে দিচ্ছে। হরতাল বা বন্ধ এর পর দিন অফিসে গিয়ে ছুটির আবেশ কাটাতেই সময় চলে যায়। ফলে অফিসে যে কি কাজ হয় তা সহজেই অনুমেয়। সাকিরের এটি ভাল লাগে না। এমন কেন হয়? মুখেতো সকলেই দেশকে ভালবাসে আসলে কি এটাই তার নমুনা?
আজ হরতাল তাই গতকাল অফিসে ঠিকমত কাজ হয়নি। সাকিরের অবশ্য তেমন কোন কাজ না থাকায় বন্ধুদের সাথে আড্ডা দিয়ে সময় কাটাতে হয়। গত কালের আড্ডাটি বেশ জমে উঠেছিল। বিশেষ করে নাসিরের কথাগুলো ওর মনে খুব ধরেছে। নাসির ওর কলিগ। খুব সুন্দর করে গুছিয়ে কথা বলতে পারে। নাসির যেখানে থাকবে সেখানে আর কারো কথা বলার সুযোগ থাকে না। তবে গত কাল ও বেশ সুন্দর সুন্দর কথা বলেছে। এক কথার জের ধরে ও বলেছে- মানুষ মন থেকে যা চায়, যদি অযৌক্তিক ও হয় এবং চাওয়াটা যদি অন্তরের হয় তবে তা পাওয়া যায়। কথাটি সত্যি। কারণ ওর নিজের জীবনে এমন একটি ঘটনা আছে যা ওর কথার সাথে মিলে যায়। সাকির অতীতে ফিরে যায়-
কলেজ থেকে বেরিয়ে মাত্র চাকরীতে ঢুকেছে। কলেজের গন্ধ তখনও গা থেকে যায়নি। তাই চাকুরীর সঠিক পদ্ধতিতে ও চলতে পারে না। দেখতে শুনতে খুব সুন্দও আর ফর্সা চেহারাটা ওর একটি প্লাস পয়েন্ট। হ্যান্ডসাম বলতে যা বুঝায় সাকির তাই। চাকুরীতে ঢুকে ওর প্রথম পরিচয় ঘটে অজিতের সাথে। অজিত ওর চেয়ে এক বৎসরের সিনিয়র। দেখতে দেখতে ৩ বৎসর পেরিয়ে গেল। সাকির এখন ভাল কর্মচারী। সকলেই ওকে ভালবাসে। কাজের জন্য না হলেও ওর ব্যবহা্রে সকলেই প্লিজ। হঠাৎ ওকে বদলি করে ঢাকায় দেয়া হলো।
ঢাকাতেও ৫ বৎসর কেটে গেল। অজিতের সাথে খুব একটা যোগাযোগ ছিল না। হঠাৎ সেদিন অজিতকে হেড অফিসে দেখে সাকির বুকে জড়িয়ে ধরলো। সব কুশল জিজ্ঞেস করে জানতে পারলো অজিত এখন ঢাকায় থাকে। ইতোমধ্যে বিয়ে করেছে এবং একটি ছেলেও আছে। বৌকে চাকুরী নিয়ে দিয়েছে। সে হেড অফিসে চাকুরী করে। সাকির শুনেতো অবাক। এই সময়ে মধ্যে এতো কিছু হয়ে গেছে? আর ও এখুনও বিয়েই করেনি। অনেকখন কথা বলে শেষে বাসার ঠিকানা দিয়ে বাসায় যাওয়ার আমন্ত্রন জানিয়ে বিদায় নিল অজিত।
কয়েকদিন পর হঠাৎ সাকিরের মনে হলো অজিতের বাসায় যাওয়ার কথা। যেই চিন্তা অমনি রওনা। হেড অফিস ২টায় শেষ কাজেই বিকেলে ওদের পাওয়া যাবে ভেবে রওনা দেয় সাকির। ঠিকঠাক মত বাসাও পেয়ে যায়। অজিত ওর বৌকে পরিচয় করিয়ে দেয়। সাকির অবাক হয়ে তাকিয়ে থাকে রমা বৌদির দিকে। সাকির ভাবে কত মেয়ের সাথেইতো এ পর্যন্ত দেখা, পরিচয়, ঘনিষ্ঠতা আর মিলন হয়েছে কিন্তু এমনটি আর দেখিনি। অজিত এমন একটি বৌ পাবে তা স্বপ্নেও ভাবতে পরেনি। যেমন গায়ের রং তেমনি লম্বা চুল। মাথা ভর্তি চুলগুলো আঁকাবাকা হয়ে পিঠের উপর থেকে নেমে মাজার নিচ পর্যন্ত ঢেউ খেলে যাচ্ছে। বডিটাও মেয়েলি ধরণের খুব সুন্দর। পেটে এতটুকু মেদ নেই। পাছাটি বেশ ভারী। শরীরের সাথে এমনভাবে মানিয়েছে যেন সৃষ্টিকর্তা নিজের হাতেই ওকে তৈরী করেছেন। অজিত ঠাট্টা করে বলে – কিরে আমার বৌ পছন্দ হলো ? সাকির লজ্জা পেয়ে বলে-তোর বৌ আমার পছন্দ হবে কেন? আমার বৌদিকে খুব পছন্দ হয়েছে। আর প্রথম দেখাইে প্রেমে পড়ে গেছি। সবাই একসাথে হেসে উঠে। অজিত ঠাট্টা করে বলে-দেখিস ভাই আমি তোর মত সুন্দর না, প্রেম টেম করে আমাকে আবার এতিম করে দিস না। বৌদিও কম যায়না। সংগে সংগে বলে উঠে-রমাকি পৃথিবীতে একজন নাকি? প্রেম করে যদি ওর সাথে ভেগেই যাই তবে তুমি আর একজন রমাকে খুজে নিও। অজিত সাথে সাথে রমাকে জড়িয়ে ধরে বলে-রক্ষে কর আমি আর রমা খুজতে পারবো না। আমারটাই আমার কাছে থাক। সবাই আবার উচ্চস্বারে হেসে উঠে। এভাবেই সাকির আর অজিত পরিবার দিন দিন ঘনিষ্ট হয়ে ওঠে। অজিত সাকিরকে খুব বিশ্বাস করে তাই ঐ মেলামেশাকে কোন খারাপ দৃষ্টিতে দেখে না। অবশ্য সাকিরও এমন কিছু করেনি যে তার জন্য অজিত তাকে সন্দেহ করতে পারে। দিন চলতে থাকে। রমা ঠিকই বুঝতে পারে সাকির ওর প্রতি খুবই দূর্বল হয়ে পড়ছে। কিন্তুু কোন মতেই প্রশ্রয় দেয় না।
সাকিরের মনে যে আগুন প্রথম দেখাতেই জ্বলেছিল তা ধীরে ধীরে বেড়ে এখন তীব্র আকার ধারণ করেছে। কিন্তু কোন উপায় দেখে না। কিভাবে ও রমাকে আপন করে কাছে পেতে পারে। বলতে গেলে সাকির এখন সারাক্ষণ রমার চিন্তায় মসগুল থাকে। মাঝে মাঝে ও স্বপ্নেও দেখে। সাকির ইচ্ছে করে বড় সাহেবকে বলে রমার বিভাগে বদলী হয়ে ওকে কাছে থেকে পেতে চাইল। এতে করে খুব অল্প দিনেই সাকির রমার খুব কাছে চলে এলো। সাকির বুঝতে পারে বন্ধুর বৌয়ের প্রতি নজর দেয়া বা তাকে আপন করে পাওয়ার চিন্তা করা খুব খারাপ কিন্তু পোড়া মনটাকে কিছুতেই বুঝাতে পারে না। সারাক্ষণ ও একই চিন্তা কি করে রমাকে পাওয়া যাবে। রমা ওর সাথে সব কিছু আলাপ করে। অনেক অনেক কথা কিন্তু একটি বিষয়ে সে দুরত্ব বজায় রেখে চলে। রমা প্রথম দিনই ঝুঝতে পেরেছিল সাকির ওর জন্য কতটা উগ্রিব। তাই ওর সাথে ভাব জমিয়ে ওকে দুরে রেখেছে।
সাকিরের দিন আর যায় না। রাতের ঘুম হারাম হয়েগেছে। চোখ বন্ধ করলেই দেখে রমা ওকে বুকে জড়িয়ে ধরে আদর করছে। তাকিয়ে পাগলের মত লাগে। রমার সাথে অনেক দিন চলার পর ও বুঝতে পেরেছে রমার পিতার বাড়ী বেশ গরীব। ওর অর্থ প্রয়োজন। সাকির অবশ্য নানা ভাবে ওকে অর্থ প্রদান করতে চেয়েছে কিন্তু রমা নেই নি। রমা লুকিয়ে লুকিয়ে ওর বাবাকে সাহায্য করে। সাকির এই সুযোগটি কাজে লাগাতে চায়। বহু চিন্তা করে ঠিক করলো রমার ঐ দূর্বল জায়গাটাতে হাত দিতে হবে।
কয়েকদিন হয় কাজের মেয়েটি চলে গেছে ওর দেশের বাড়ী। কাজেই বাসা খালি। বাচ্চাকে একা রেখে আসা সম্ভব নয়। তাই অজিত আর রমা দুজনে ভাগ করে অফিসে আসছে। অজিত যেদিন অফিসে আসে সেদিন রমা বাসায় থাকে। আবার রমা যেদিন অফিসে আসে অজিত সেদিন বাসায় থেকে বাচ্চাকে দেখে শুনা করে। খবরটা জেনেই সাকিরের মন আনন্দে নেচে উঠে। খোজ নিয়ে দেখে অজিত আজ অফিসে এসেছে কাজেই রমা বাসায় একা। সাকির একটা স্কুটার নিয়ে একটানে রমার বাসায় এসে উপস্থিত হল। দোতালা বাসায় কলিং বেল টিপতেই রমা এসে দরজা খুলে দাড়ায়। কোন সাজগোজ নেই। সাদামাটাভাবে একটি সুতির শাড়ী পড়েছে। তাতেই ওকে খুব সুন্দর লাগছে। রমা সাকিরকে দেখে একটু অবাকই হয়। মনে যাই থাকুক কিন্তু মুখে একটু হাসি টেনে বলে-কি ব্যাপার, হঠাৎ আপনি?
বাইরে দাড়িয়েই কথাই বলবো ভিতরে আসতে দিবেন না? সাকির মিষ্টি করে হেসে বলে।
ও হ্যা। আসুন আসুন বলে ওকে ড্রইং রুমের দিকে যেতে বলে। সাকির ঘরে ঢুকে একটি সোফায় গিয়ে বসে। রমা গেট লাগিয়ে ওর পিছন পিছন এসে আর একটি সোফায় বসে বলে-হ্যা এবার বলুন অফিসে জাননি ?
গিয়েছিলাম, ভাল লাগলো না তাই চলে এলাম। একটু মিথ্যে করে বলে-আসলে আপনার এখানে আসবো বলে বের হইনি। এখানে আর একজন বন্ধু থাকে তার খোজে এসেছিলাম। ওর কাছে অনেকগুলি টাকা পাবো আজ দেয়ার কথা তাই।
পেলেন ?
হ্যা পেয়েছি তবে পুরো না। মানুষকে টাকা ধার দিলে সে টাকা তোলা খুব কঠিন ব্যাপার। কাজ তাড়াতাড়ী শেষ হয়ে গেল তাই ভাবলাম আপনি তো আজ বাসায় তাই দেখা করে যাই। কোন অসুবিধা আছে নাকি? তাহলে চলে যাই। অভিমানের সুরে সাকির বলে।
না না কি অসুবিধা। বসুন। এসে যখন পড়েছেন তখন একটু জিড়িয়ে যান। এমনি করে দু’জনে গল্পে মজে উঠে। সাকির ভালভাবেই জানে মেয়েদের সাথে কিভাবে জমাতে হয়। তার উপর রমার দুর্বল জায়গাটা ধরে এগিয়ে যায়। কথায় কথায় একসময় সাকির রমাকে জিজ্ঞেস করে-আচ্ছা বৌদি একটি সত্যি কথা বলবেন?
রমা দুষ্টমির হাসি দিয়ে বলে কি সত্যি কথা খারাপ কথা হলে বলবো না।
না না খারাপ কথা নয় সত্যি কথা।
ঠিক আছে বলেন বলবো।
অজিত আপনাকে তৃপ্তি দিতে পারে ? বলেই সারিক রমার চোখের দিকে তাকিয়ে থাকে। সাকিরের এই কথা বলার উদ্দেশ্য আছে। কারণ অজিত বেশ একটু বেটে প্রকৃতির আর চেহারা টাও দেখার মত না। তাছাড়া বয়সেও বেশ বড়।
রমা কিছু বলে না। চুপ করে থাকে। সাকির আবার বলে। বলেন না ? আমার খুব জানতে ইচ্ছে করে।
রমা উঠে দাড়ায়। সাকির নাছোড় বান্দা। বলে আপনি কথা দিয়েছিলেন সত্যি কথা বলবেন। রমা অন্য ঘরে যেতে যেতে বলে – না।
সাকির এই উত্তরটাই চেয়েছিল। যদি কোন মেয়ের স্বামী তাকে তৃপ্তি দিতে না পারে তাহলে তারা অতৃপ্ত থেকে যায় এবং অন্য পুরুষের প্রতি বেশ দুর্বল থাকে। সাকির এটা ভাল করেই জানে। সাকিরের মনটা খুশিতে নেচে উঠে।
রমা উঠে গিয়ে ফ্রিজ থেকে একবাটি ফিন্নি আর এক গ্লাসে পানি এনে সাকিরকে খেতে বলে। সাকির লক্ষ্য করে এর মধ্যেই রমা নিজেকে আরও একটু গুছিয়ে ফেলেছে। তাতে ওকে আরও সুন্দর লাগছে।
ফিন্নি খেয়ে সাকির বলে আপনার হাতের রান্না এত মিষ্টি, যে হাত দিয়ে রান্না করেন তা যেন কত মিষ্টি। দিন না হাতটা চেখে দেখি কত মিষ্টি ? এই বলে সাকির ওর হাতটা বাড়িয়ে দেয়।
রমা নিজের রান্নার তারিফ শুনে একটু খুশি হয়-কিন্তু মুখে বলে-ইস সখ কত ? বিয়ে করে ঘরে বৌ এনে তার হাত চেখে দেখবেন। সাকির হাত না সরিয়েই বলে সেটা যখন বিয়ে করি তখন দেখবো কিন্তু এখন আপনার হাতটা দিন প্লিজ।
রমা কি মনে করে হাতটি বাড়িয়ে দেয়। সাকির রমার হাতটি ধরে একটু নাড়াচাড়া করে পট করে টানদিয়ে হাতে চুমু খায়। রমা জোর করে হাতটি ছাড়িয়ে নেয়। সাকির বলে বৌদি সত্যি আপনার হাত মিষ্টি।
আচ্ছা একটি কাজ করলে কেমন হয় ? অনেক দিন তো আমি আপনাকে সাহায্য করতে চেয়েছি, কিন্তু আপনি নেন নি। বলেছেন এমনি এমনি কি করে নেব। আজ একটি কাজ করুন। আপনি তো জানেন আপনার প্রতি আমি কতটা দূর্বল। আমি আপনাকে কিছু বলবো না। সত্যি বলছি। র্স্পসও করবো না। শুধু দেখবো। আপনি যদি আমাকে এই সুযোগটি দেন তবে আমি আপনাকে পাঁচশত টাকা দেব। রমা সাকিরের দিকে তাকিয়ে আছে।
সাকির বুঝলেন না তো ? বুঝিয়ে বলছি। আপনার শরীরের অনেক অংশই আমি দেখেছি। যেমন বুকের অনেক টুকুই আমার দেখা। আপনি যদি আপনার একটি ব্রেষ্ট আমাকে দেখান তবে এই মুহুর্তে আমি আপনাকে পাঁচশত টাকা দেব। সত্যি করে বলছি আমি আপনাকে ছুবো না। আপনি দুর থেকে দেখাবেন। বলেই পাঁচশত টাকার একটি নোট বের করে টেবিলে রাখে। রমা লজ্জায় লাল হয়ে ওঠে। বৌদি চিন্তা করে দেখেন সুধু দেখাবেন তাতেই আপনার সমস্যা সমাধান। অন্য কেউ দেখছে না। শুধু আমি আর আপনি। কত সময়ইতো অসতর্ক মুহুর্তে এমনটি হয়। রমা কি ভেবে টেবিলে রাখা সাকিরের টাকাটা হাতে নিয়ে নিজের ব্লাউজের হুক খুলতে থাকে। সাকির অবাক দৃষ্টিতে চেয়ে থাকে পরবর্তী দৃশ্য দেখার জন্য। হুক খোলা শেষ হলে রমা দু হাত পিছনের দিয়ে ব্রা’র হুক খুলে দেয়। সাকির দেখে সামনের ফুলো দুটি ব্রেষ্ট একটু নড়ে ওঠে। রমা কোন দিক না চেয়ে ব্লাউজটি সরিয়ে একটি ব্রেষ্ট বের করে দেয়।সাকির মন্ত্র মুগ্ধের মত তাকিয়ে দেখে ওর এতোদিনের স্বপ্নে দেখা রমার পুষ্ট একটি ব্রেষ্ট। বেশ খাড়া ও পুষ্ট। ধবধবে সাদা মাংশ পিন্ডের মাঝে একটু খানি বাদামী রং এবং তার মধ্যে একটি কিসমিসের দানার মত একটি দানা বসানো আছে।
সাকির আবার পকেটে হাত দেয়। মানি ব্যাগ বের করে আরও একটি ৫০০ টাকার নোট বের করে টেবিলে রেখে বলে ওটা দেখালে এটা দেব। রমা ভাবে লজ্জা যা পাওয়ার তা তো পেয়েছি। এখন একটা আর দুটোর মধ্যে পার্থক্য কি ? টাকাটা একহাত দিয়ে নিয়ে দুটো ব্রেষ্ট বের করে দেয়। সাকির চোখ ফেরাতে পারে না। অপলক দৃষ্টিতে তাকিয়ে দেখতে থাকে রমার সুন্দর্যমন্ডিত ব্রেষ্ট দুটি।
সাকির কতক্ষন তাকিয়ে ছিল তা বলতে পারবে না। যখন রমা ব্রেষ্ট দুটি ঢাকতে যাবে তখন বলে-প্লিজ ঢাকবেন না। তাড়াতাড়ী মানিব্যাগ বের করে ২ট ৫০০ টাকার নোট বের করে বলে-আপনি ওখানে দাড়িয়ে উপরের সব কাপড় খুললে এগুলো দেব। রমাকে যেন নেশায় পেয়েছে। ও সাকিরের হাত থেকে ছৌ মেরে টাকাটা নিয়ে উঠে দাড়িয়ে ব্লাউজ আর ব্রাটি খুলে পাশে রেখে দেয়। রমা যখন ওর ব্লাউজ আর ব্রা খুলছিল তখন ওর দু হাত উপরে উঠে যায়। সাকির লক্ষ করে রমার ফরসা হাতের নিচে কালো লোমে ঢাকা বোগলতলার লোম গুলো চিক চিক করছে। রমার লোম দেখে সাকিরের সেক্স ভীষণভাবে বেড়ে যায়। সাকির দেখে রমার খোলা দুধ দুটি বেশ বড় কিন্তু খুব সুন্দর। সাকির টেবিলে রাখা গ্লাস থেকে এক নিঃশ্বাসে পানিটুকু খেয়ে ফেলে।
সাকির আবার মানি বেগে হাত দেয়। আরও ২টি ৫০০ টাকার নোট বের করে বলে-এবার নিচের জিনিসটি দেখালে এটা দেব। রমার যেন কোন দিকে খেয়াল নেই। সাকিরের হাত থেকে টাকাটি নিয়ে প্রথমে শাড়িটি খুলে ফেলে। সাকির আসল জিনিসটি দেখার জন্য উগ্রিব হয়ে বসে থাকে। তারপর রমা ওর পেটিকোটটি ধীরে ধীরে উপরের দিকে তুলতে থাকে। যতই উপরে উঠছে সাকির ততই উত্তেজিত হয়ে উঠছে। রমার ফরসা দুটি মোট মোটা মসৃন রান দেখতে পাচ্ছে সাকির। আরও একটু উপরে আরও। একসময় পেটিকোটটি মাজার সীমারেখা ছাড়িয়ে উপরে উঠে গেল। সাকির লক্ষ করলো রমার দুরানের মাঝে যে ত্রিকোনাকার জায়গাটি দেখার জন্য এতো ব্যকুল হয়েছিল সে জায়গাটি কালো লোমে ঢাকা পড়ে আছে। অনেক দিন সেভ করেনা বলে বেশ বড় বড় হয়েছে। দুর থেকে শুধু ছবির মত কালো জায়গাটিই নজরে পড়লো। সাকিরের নিঃশ্বাস ঘন ঘন পড়ছে। ও হঠাৎ বলে উঠে ঘুরে দাড়ান। কণ্ঠস্বর শুনে ও নিজেই যেন চিনতে পারছে না। এ যেন ওর কষ্ঠশ্বর নয়। রমা ঘুরে ওর দিকে পিছন দিয়ে দাড়ায়। সাকির দেখছে মাথা থেকে থরে থরে চুলের গোছা নেমে রমার পুরো পাছাটি ঢেকে ফেলেছে। চুলের ফাক দিয়ে রমার ফরসা ভরাট পাছাটি সামান্য দেখা গেল। রমা এবার আবার ঘুরে দাড়াল।
সাকির এবার শেষ তীর ছুড়লো। ওর ব্যাগ থেকে ৪টি ৫০০ টাকার নোট বের করে বলে-আমাকে খুশি করলে এটা পুরোটাই দিয়ে দেব। রমার অবস্থা তখন বেশ খারাপ। কারণ একজন পুরুষ মানুষের সামনে এভাবে একের পর এক বিবশ্র হওয়া খুব স্বাভাবিক কাজ নয়। রমা মুখে কিছু না বলে পেটিকোটটি ছেড়ে দিয়ে সাকিরের হাত থেকে টাকাটা নিয়ে নিল। শুধু টাকাটা ধরা পর্যন্ত সময়। এরই মধ্যে সাকির উঠে এক লাফে রমাকে জড়িয়ে ধরে রমার দুঠোটে চুমুতে চুমুতে পাগল করে ফেলল। রমার দুঠোটের মাঝে ও জিব ঢুকিয়ে দিয়ে দুহাত দিয়ে রমার শরীরকে দলিত মথিত করতে লাগলো। রমা এখন আর রমাতে নেই ও ভুলে গেছে ও কারও স্ত্রী। ও আদিম উন্মাদনায় সাকিরের ঢুকিয়ে দেয়া জিবটি চুষতে লাগলো। সাকির ইতিমধ্যে রমার পুষ্ট স্পঞ্জের মত ব্রেষ্ট দুটি ধরে চিপতে শুরু করেছে। রমাকে পাগলের মত বুকের মধ্যে পিষে ফেলছে সাকির। রমা ওকে একটু শান্ত হতে বলল। সাকির তখন উন্মাদ। ঠোট পেরিয়ে সাকির তখন রমার টকটকে সাদা ফুলকপির মত ফুটে থাকা ব্রেষ্টের বোটায় মুখ লাগিয়ে চুষতে থাকে। রমা আর সহ্য করতে পারে না। সাকিরের মাথাটি বুকের মধ্যে চেপে ধরে। সাকির তখন পেটিকোটের ভিতর হাত ঢুকিয়ে রমার আসল জায়গায় পৌছে গেছে। বেশ বড় বড় লোমের মধ্যে নাড়াচাড়া করতে করতে আরও নিচের দিকে আগায় সাকির। হঠাৎ অনুভব করে ওর হাত পিচ্ছল পানিতে ভরে গেছে। রমার নিচের অংশটুকু ভিজে চুপ চুপ করছে। সাকির ব্রেষ্ট চোষার ফলে রমা চরম উত্তোজিত হয়ে পড়ে। ও সাকিরের দন্ডটি ধরার জন্য হাত আগায়। কিন্তু সাকির প্যান্ট পরা থাকায় আর ধরতে পারে না। সাকির বুঝতে পেরে রমাকে পাজা কোলে করে বড় সোফাটাতে চিৎ করে শুইয়ে দেয়। তাড়াহুড়ো করে নিজের প্যাটটি খুলে ফেলে। এতোক্ষন বন্ধি অবস্থায় থাকা দন্ডটি ছাড়া পেয়ে সটাং করে বেরিয়ে ফোস ফোস করতে থাকে। এর মধ্যে উত্তেজিত রমা ওর পেটিকোটি খুলে পজিশন নিয়ে বেসে পড়ে। সাকির কাপড় খুলে রমার সামনে এসে দাড়াতেই রমা ওর নরম হাত দিয়ে সাকিরের উত্তেজিত দন্ডটি ধরে অবাক নয়নে দেখতে থাকে। সাকিরের দন্ডটি কি সুন্দর যেমন মোট তেমনি লম্বা আর ফরসা। অজিতের মত কালো কুচ কুচে নয়। রমা আদর করে ওর লিংগটি ধরে ওর নিজের ব্রেষ্টের সাথে মিলন ঘটায়। সাকির আর সহ্য করতে পারে না। রমাকে জাপটে ধরে শুয়ে পড়ে। রমা সাকিরকে বলে- আর পারছি না। যা করার তাড়াতাড়ী কর।
সাকির এবার উঠে রমার পায়ের কাছে গিয়ে ওর পাদুটো ফাক করে রমার বদ্বীপটির কালো জঙ্গল মধ্যে সুরঙ্গ পথ দেখতে পায়। সাকির তাকিয়ে দেখে রমার সুরঙ্গ পথে সাদা সাদা তরল পদার্থে ফেনার মত চপ চপ করছে। ঐ অবস্থা দেখে সাকিরের দন্ডটি আবার ফোস ফোস করে ওঠে। দন্ডায়িত দন্ডটি ধরে রমার সুরঙ্গ পথে একটু নাড়া চাড়া করতেই ওর দন্ডের মন্ডুটি ভিজে যায়। এবার রমার সুরঙ্গ মুখে সাকির ওর দন্ডটি ধরে চাপ দেয়।কোন বাধা না পেয়ে এক চাপেই পুরো টা ঢুকে যায়। এরপর শুরু হয় সাকিরের মাজা দোলানী খেলা। রমা নিচে থেকে মাঝে মাঝে উপরের দিকে চাপ দিয়ে মুখে আহ্* ইস্* শব্দ করতে থাকে। সাকির তখন অনুভব করে মাল বেরিয়ে যাওয়ার সময় হয়েছে। হঠাৎ করে ও রমার যোনী থেকে ওর দন্ডটি বের করে ফেলে। রমা নিচে থেকে চেচিয়ে ওঠে-কি হলো বের করলে কেন ? সাকির বলে মজা করতে। এই বলে সাকির আবার রমার বুকে ঝাপিয়ে পড়ে ওর ব্রেষ্ট চুষতে থাকে। রমা সাকিরের মুখটি তুলে একটি চুমু দিয়ে বলে-লিক্ষিটি আর পারছি না। আমার চরম সময় এসেছে প্লিজ ঢুকাও।
সাকির রমাকে তুলে ওর কোলে বসায়। রমা বুঝতে পেরে সাকিরের দন্ডিত দন্ডটি ধরে নিজের রসে ভরা যোনির মুখে স্থাপন করে একচাপে ভিতরে ঢুকিয়ে নেয়। রমা দুহাত দিয়ে সাকিরের গলা জড়িয়ে ধরে নিযের মাজাটি উপরে নিচে করতে থাকে। সাকিরের সামনে তখন রমার ফুটন্ত দুটি দুধ নড়তে থাকে। সাকির তখন রমার একটি দুধ মুখে নিয়ে চুষতে থাকে। রমা এবার নিজের মত করে মাজা নাড়িয়ে ওর সুখ ভোগ করতে থাকে। একটু পরে রমা একটি আর্ত চিৎকার দিয়ে সাকিরকে বুকের মধ্যে এমনভাবে চেপে ধরে যে সাকিরের নিশ্বাস ফেলা বন্ধ হয়ে যায়। সাকির চেষ্টা করে কিন্তু রমাকে সরাতে পারে না। রমা ওর সমস্ত শক্তি দিয়ে সাকিরকে নিজের বুকে চেপে ধরেছে। সাকির বুঝতে পারে রমার যোনির ভিতর এখন কি হচ্ছে। তাই নিজের একটু কষ্ট হলেও রমার জন্য ও এই কষ্টটুকু মেনে নেয়। একটু পরে রমা সাকিরের চেপে ধরা মাথা ছেড়ে দিয়ে হাপাতে থাকে। সাকির রমার মুখটি ওর মুখে চেপে ধরে আদার করতে থাকে। রমার কপালে বিন্দু বিন্দু ঘাম দিয়েছে। সাকির ঐ ঘামের গন্ধ উপভোগ করে। একটু দম নিয়ে রমা বলে তোমার হয়েছে ? সাকির মৃদ হেসে বলে না। রমা আর্ত চিৎকার করে বলে -হায় ভগবান ?
সাকির রমাকে কোলে থেকে নামাতেই রমা লক্ষ করে সাকিরের বিরাট আকারের দন্ডটিতে সাদা সাদা তরল পদার্থে চিক চিক করছে। রমা মুগ্ধ হয়ে দেখে। এবার সাকির রমাকে সোফার পাশে দাঁড় করিয়ে ওর দিকে পিছন ফিরে পাছাটি বের করে দিতে বলে। রমা আপত্তি করে। বলে ওভাবে আমি পারবো না। সাকির মিনতি করে বলে – কিছু হবে না। তোমার কোন অসুবিধা হবে না। কি ভেবে রমা রাজি হয়। মাথাটি নামিয়ে দুহাত ভেঙ্গে সোপার উপর উবু হয়ে দাঁড়ায়। সাকির পিছন দিক থেকে রমার ধব ধবে পাছাটি ধরে আদার করে ওর মাজার উপরে চাপ দেয়। এবার রমার পাছাটি আরও ফাঁক হয়ে পিছনের দিকে সরে আসে। সাকির এমনটিই চেয়েছিল। এবার রমার যোনির মুখটি দেখা যাচ্ছে। সাকিরের বুভুক্ষ দন্ডটি এবার রমার পিছন দিক দিয়ে রসে ভরা যোনির মুখে স্থাপন করে ধীরে ধীরে চাপ দেয় সাকির। রমা কিছু বলে না। সাকির পুরোটা ঢুকিয়ে এবার বার বার রমার মাজা ধরে নিজের মাজা দোলাতে থাকে। রমার যোনিপথটি পিচ্ছল তরল পদার্থে ভিজে থাকায় চপ্* চপ্* আওয়াজ বেরোতে থাকে। ঐ আওয়াজে সাকির আরও পাগলের মত বেশী করে মাজা দোলাতে থাকে। সাকির এবার রমার পিঠের উপর দিয়ে দুবোগলের পাশ দিয়ে রমার ব্রেষ্ট দুটি ধরে পিটতে থাকে। রমা পিঠের উপর চাপ সহ্য করতে না পেরে সোফায় উবু হয়ে শুয়ে পড়ে। সাথে সাথে সাকিরও রমার উপর পড়ে। ঠিক ঐ সময়ই সাকির ও রমা অনুভব করে সাকিরের দন্ড থেকে গল গল করে তরল পদার্থ বেরিয়ে এসে ভরে দেয় রমার যোনি। ওভাবে কিছুন থেকে উঠে পড়ে সাকির। একটু রেষ্ট নিয়ে বাথরুমের দিকে পা বাড়ায় সাকির। রমা আরও কিছুন ঐ ভাবে পড়ে থেকে পরে উঠে কাপড় পড়ে নেয়।
সাকির বাথরুম থেকে ফিট বাবু হয়ে বেরিয়ে এসে সোফায় বসে। রমা এরই মধ্যে সাকিরের জন্য এক গ্লাস লেবুর ঠান্ডা শরবত হাতে নিয়ে ঘরে ঢুকে। শরবত দেখে সাকির খুব খুশি হয়। বলে-এ জন্যই তোমাদে্র এতো ভাললাগে। কখন কি প্রয়োজন তা তোমরা ঠিক বুঝতে পার। রমা কিছু বলে না। শুধু মিষ্টি করে একটু হাসে। সাকির এক চুমুকে শরবতটুকু খেয়ে বলে এবার আসি ?
রমা মুখে কিছু বলে না, শুধু ঘাড় নেড়ে সায় দেয়। সাকির দাঁড়ায় বের হওয়ার জন্য। একটু এগিয়ে আবার ফি্রে দাড়িয়ে বলে-কিছু মনে করলে না তো ?
রমা তখনও কিছু বলে না। শুধু এগিয়ে এসে সাকিরের গালে একটি চুমু দেয়। সাকির সব বুঝতে পারে। ও রমাকে জড়িয়ে ধরে ওর মিষ্টি ঠোটে আরও একটি চুমু দিয়ে বলে-তোমাকে কোন দিন ভুলব না।
সাকির বেরিয়ে গেলে রমা দরজাটা লাগিয়ে এসে ওর বিছানায় চিৎ হয়ে শুয়ে পড়ে। চোখ বন্ধ করে ভাবতে থাকে-আহ্* কি সুখ। আজ কত দিন হয় ওদের বিয়ে হয়েছে কিন্তু এর আগে কোন দিন এমন সুখ পায়নি। নর-নারীর মিলনে এতো সুখ রমা ভাবতেই পারেনি। অনেকন ধরে ও সাকিরের শরীরের গরম অনুভব করে।
হঠাৎ পাশে তাকিয়ে দেখে ছেলেটি ঘুমিয়ে আছে। উঠে পড়লে আর কাজ করতে পারবে না। তখনই ঝাড়া দিয়ে উঠে বাথরুমে ঢুকে সাওয়ারের ছেড়ে গুন গুন করে গান গাইতে থাকে। এমন আনন্দ যেন আর কখুনও পায়নি রমা। খুব সুন্দর করে গোসল সেরে বেরিয়ে এসে আয়নার সামনে দাঁড়ায় রমা। ও যেন এক নতুন রমা। ওর নিজের কাছেই ওকে ভাললাগে। সিঁথিতে সিদুর দিতে দিতে অজিতের কথা মনে পড়ে। মনটা খারাপ হয়ে যায়। তাড়াতাড়ী রান্না ঘরে যায়।
বিকেলে অজিত বাসায় ফেরে। খাওয়া দাওয়া সেরে অজিত বিছানায় গিয়ে আরাম করে। এরই মধ্যে বাচ্চাটাও অজিতের কাছে গিয়ে খেলা শুরু করেছে। রমা কাজ সেরে গুন গুন করে গান গাইতে গাইতে ঘরে ঢুকে। অজিত রমার মুখে গান শুনে বলে-কি ব্যাপার আজ মন এতো খুশি ? লটারীর টাকা পেয়েছ নাকি ?
হঠাৎ অজিতের মনে পড়ে টাকার কথা। বলে-রমা সাকির এসেছিল নাকি ?
রমা আচমকা সাকিরের নাম শুনে ঘাবড়িয়ে যায়। কি বলবে ? মিথ্যা বলবে ?
হা এসেছিল।
আহ্* বাঁচা গেল। টাকাটা দিয়ে গেছে তো ?
কিসের টাকা ? রমা অবাক হয়ে জিজ্ঞেস করে।
কয়েকদিন আগে সাকির আমার কাছ থেকে ৫ হাজার টাকা ধার নিয়েছিল। আজ দেবার কথা। দিয়েছে নিশ্চই ?
রমার মুখে কোন কথা ফোটে না। অস্ফুষ্ট কন্ঠে বলে ওঠে-হাঁ।
একনাগারে সাত দিন রমা অফিসে যায় না। অজিত জিজ্ঞেস করেছিল রমা বলেছে শরীর ভাল না। আসলে রমা সাকিরের কথা ভুলতে পারছে না। রমার মনের এক কোনায় সাকিরের জন্য দুর্বলতা ধীরে ধীরে জমা হচ্ছিল কিন্তু সে যে এভাবে রমার সাথে ধোকাবাজী করতে পারে তা এখনও ভাবতে পারে না রমা। আসলে সব পুরুষ মানুষই কি এমন ? স্বার্থ ছাড়া কিছুই বোঝে না ? পৃথিবীতে স্বার্থই কি সব ? ভাললাগা ভালবাসা বলতে কি কিছুই নেই। সাধারণ চুক্ষু লজ্জাও তো মানুষের থাকে। আর ভাবতে পারে না রমা। ওর শরীর শিউরে উঠে।
এদিকে সাকিরও ভেবে পায় না কি করে ও রমাকে এভাবে ধোকা দিল। ও কিন্তু মন থেকে চায়নি এভাবে ধোকা দিতে। কিন্তু কি থেকে কি হয়ে গেল এখন রমার সামনে যাবে কি করে। অফিসে এলেইতো দেখা হবে। কিভাবে ওর দিকে মুখ তুলে তাকাবে ? তাছাড়া রমার প্রতি এখনও সাকিরের দূর্বলতা কমেনি বরং ঐ দিনের পর আরও বেড়ে গেছে।
এক সপ্তাহ পর রমা অফিসে এসেই সাকিরকে খুজছে। ওর সাথে একটা বোঝাপড়া হওয়া দরকার। তা না হলে ও স্বস্থি পাচ্ছে না। যা হোক কিছু বলে ওর মনটাকে হালকা করতে হবে। কিন্তু চেষ্টা করেও সাকিরের দেখা পেলো না। অফিসে এসে কোথায় যে ডুব দিয়েছে তা কেউ বলতে পারে না। আরও একদিন কেটে গেল। সাকিরের দেখা পেল না রমা। তৃতীয় দিন হঠাৎ করেই পেয়ে গেল সাকিরকে। লিফট ছেড়ে দেবে এমন সময় কোথা থেকে দৌড়ে এসে ঢুকে পড়ে সাকির। আর ঠিক ওরই পাশে। একেবারে গায়ে লাগার মত অবস্থা। সাকিরকে দেখে রমার রাগ সপ্তমে চড়ে যায়। ওর সুন্দর মুখটি কালো হয়ে যায়।
সাকির দৌড়ে এসে লিফটে উঠতেই লিফট ছেড়ে দেয়। সাকির রমাকে প্রথমে দেখেনি। লিফট ছাড়ার পর পাশে তাকাতেই ভুত দেখার মত রমাকে দেখে ওর শরীরের সব রক্ত ঠান্ডা হয়ে যায়। একটি শীতল শ্রোত যেন পা থেকে মাথায় উঠে যায়। রমার সাথে ওর চোখাচোখি হতেই সাকির চোখ নামিয়ে নিয়ে অন্য দিকে তাকিয়ে থাকে। আর সাহস পায়না রমার দিকে তাকাতে। হঠাৎ অনুভব করে ওর হাতে একটি নরম হাতের ছোয়া। শরীরটা কেপে উঠে। তারপরও সাহস পায়না রমার দিকে তাকাতে। রমা ওর হাতে একটু চিমটি কাটে। সাকির নিরবে হজম করে রমার চিমটি। লিফট থামতেই সাকির চট করে নেমে নিজের টেবিলে চলে যায়। রমা সাকিরের পিছু পিছু গিয়ে ওর মুখোমুখি দাড়ায়। নরম গলায় বলে-আপনি একটু আমার ওখানে আসুন। গলা নরম হলেও কথাটির মধ্যে যেন আদেশের সুর। রমা কথাটি বলেই নিজের টেবিলের দিকে পা বাড়ায়। রমা মরিয়া হয়ে উঠেছে। আজ এর একটি শেষ নামাতে হবে। তা না হলে ও স্বস্থি পাচ্ছে না। সাকির সুবোধ বালকের মত রমার পিছন পিছন এসে ওর টেবিলের সামনে দাড়ায়। সাকির মনে মনে প্রস্তুতি নেয় পরবর্তী পরিস্থিতির জন্য। রমা ওর চেয়ারে বসে বলে-বসুন। সাকির নিরবে বসে নিচের দিকে তাকিয়ে থাকে।
কিছুন নিরব থেকে রমা শান্ত অথচ প্রচন্ড ঝাজ নিয়ে বলে-আমি আপনার সমন্ধে অনেকের কাছে অনেক কথা শুনেছি। আপনি লেডি কিলার। ধোকাবাজ ইত্যাদি। কিন্তু আমি বিশ্বাস করতে চাইনি। কিন্তু আপনি আমার সাথেও যে এতো বড় ধোকাবাজি করতে পারেন তা আমার এখনো বিশ্বাস হচ্ছে না। আপনি কি ? ছি ?
সাকির কিছুক্ষণ নিরব থেকে তারপর মুখ তুলে বলে-আপনার কথা শেষ হয়েছে ? আমি কিছু বলবো ? রমা মুখে কিছু বলে না। ওর দিকে তাকিয়ে থাকে। সাকির রমার চোখের দিকে তাকিয়ে বলে-বিষয়টি আপনি যেভাবে ভাবছেন তা নয়। আমি আপনাকে ধোকা দেইনি। আর কোন দিন ধোকা দিতেও পারবো না। আপনি টাকাটাকে কেন বড় করে দেখছেন। টাকাটাই কি সব ? আমি আপনাকে পাবার জন্য পাগল গয়ে উঠে ছিলাম। যে কোন কিছুর বিনিময়ে আমি আপনাকে কাছে পেতে চেয়েছিলাম। ঐ দিন আমি টাকাটা দিতে গিয়েছিলাম। হঠাৎ আপনার সাথে কথা বলতে বলতে কেমন করে যে টাকাটা দিলাম আমি নিজেও বুঝতে পারিনি। তবে আমি কিন্তু মন থেকেই আপনাকে টাকাটা দিয়েছিলাম। সব গোন্ডগোল পাকালেন আপনি। আপনি অজিতের কাছে কেন স্বীকার করলেন যে আমি আপনার কাছে টাকা দিয়েছি ? আমি অজিতকে ঐ টাকা পরে দিয়ে দিতাম। আমি টাকার জন্য আপনাকে চাইনি। কত টাকা দরকার। আপনি আমাকে বলুন-দশ হাজার-বিশ হাজার-পঞ্চাশ হাজার ? বলুন এখনই আমি আপনাকে টাকা দিয়ে দেব। বলতে বলতে সাকির হাপিয়ে ওঠে।
রমা সাকিরের মুখের দিকে তাকিয়ে থাকে। রমার মনে হয় সাকির যেন সত্য কথাই বলছে। সত্যিতো রমা যদি অজিতের কাছে স্বীকার না করতো তবে তো কিছুই হতো না। তা হলে সাকির ধোকাবাজ নয় ? রমা নিজের মনেই জুক্তি দিয়ে বুঝতে চেষ্টা করে। সাকির রমার মুখের ভাব দেখে বুঝতে পারে ওর কথায় কাজ হয়েছে। সাকির উৎসাহ নিয়ে বলে-রমা তুমি সব মানুষকে এক পাল্লায় মেপো না। সাকির লেডী কিলার হতে পারে। সেটা মেয়েদের তৃপ্তি দেয়ার জন্য। সত্যি করে বলো তুমি সেদিন তৃপ্তি পাওনি ? তোমার মনটাকে কি আমি আনন্দে ভরে দিতে পরিনি ?
রমা কথা বলতে পারে না। ওর স্মৃতিতে ভেষে উঠে ও সাকিরের গলা জড়িয়ে ধরে সাকিরের জিনিসটি নিজের ভিতরে পুরোটা ঢুকিয়ে কোলে বসে আছে আর ওর ব্রেষ্টে মুখ লাগিয়ে চুষে দিচ্ছে সাকির। রমার শরীর সিড় সিড় করে উঠে। ও সাকিরের দিকে মুগ্ধ নয়নে তাকিয়ে থাকে। সাকির তা বুঝতে পেরে বলে-রমা সত্যি আমি তোমাকে ধোকা দেইনি। আমি তোমাকে ভালবাসি। রমার মুখে এবার কালোভাব কাটিয়ে লাল আভা ফুটে উঠে। গলাটা নরম করে বলে-সরি সাকির। আমি তোমাকে ভুল বুঝেছিলাম। আই এ্যাম সরি।
সাকিরও মিষ্টি করে হেসে বলে-আর সরি বলতে হবে না। পুশিয়ে দিও তাতেই চলবে।
ইস্* বাবুর সখ দেখ ? যা হবার হয়ে গেছে আর না। বলে দুষ্টমির হাসি হাসে। সাকির বুঝতে পারে এটা রমার মনের কথা নয়। মনের কথা এর উল্টোটা। মানে তাড়াতাড়ী পুশিয়ে নাও।
ঠিক আছে আমি আর তোমার দিকে তাকাবো না। তুমি তোমার অজিতকে নিয়েই থাকো। সাকির একটু অভিমান করে বলে।
ইস্* বাবু দেখি আবার রাগও করতে পারে। অসভ্য। গায়ে জ্বালা ধরিয়ে দিয়ে এখন কেটে পড়তে চাও ? তা হতে দেব না। আগামী কাল আমি অফিসে আসবো না। তুমি ঐ দিনের মত ঐ সময়েই আসবে।
সাকির বলে-মারবে নাতো ? তোমার যে মুর্তি আমি লিফটে দেখলাম তাতে আমিতো ভয়েই অস্থির।
রমা হেসে বলে-এ ক দিন আমার মনের অবস্থা যে কি ছিল তা আমি তোমাকে বুঝাতে পারবো না। আজ আমার ঘাম দিয়ে জ্বর ছাড়লো। যাক গে সে সব কথা চা খাবে ?
না চুমু খাব।
অসভ্য।
মিষ্টি হেসে সাকির উঠে চলে যায়। ওর যাওয়ার পথের দিকে তাকিয়ে রমা একটি তৃপ্তির নিঃস্বাস ছাড়ে।
সাকিরও তৃপ্তির হাসি মুখে লাগিয়ে নিজের টেবিলে এসে বসে। একটু ভাবতে চেষ্টা করে রমাকে এবার কিভাবে এঞ্জয় করবে। রমার উলঙ্গ দেহটি ও মানষপটে ভেসে উঠে। সাকিরের শরীর গরম হতে থাকে। সাকির ঐ দিন রমাকে ভালভাবে দেখতে পারেনি। কারণ রমাকে পাবার আনন্দে মশগুল থাকায় ওর দেহের সুর্ন্দয্য লক্ষ করার সময় পায়নি। এখন রমাকে সম্পূর্ণ উলঙ্গ করে সামনে এনে ভালভাবে দেখতে থাকে। রমার নাভীটি বেশ গর্ত। ফরসা মেদ ছাড়া পেটের মাঝখানে এমন একটি সুন্দর গর্ত রমাকে আরও সুন্দর্য্য মন্ডিত করেছে।
হঠাৎ পিয়নটা এসে সাকিরের ধ্যান ভঙ্গ করে দেয়। বড় সাহেব আপনাকে সালাম দিয়েছে। সাকিরের মনে হলো কে যেন ওর কানে গরম সিসা ঢেলে দিল। তাকিয়ে দেখে এরশাদ। অফিসের পিয়ন। সাকির চোখ খুলতেই এরশাদ আবার বলে-স্যার সকাল বেলাই ঘুমিয়ে গেলেন নাকি ? বড় সাহেব আপনাকে সালাম দিয়েছে। আসেন।
সাকির নিজেকে সামলে নিয়ে বলে-ঠিক আছে তুমি যাও আমি আসছি।
সাকিরের অফিসে আর মন বসছে না। সময় যেন থেমে গেছে। ঘড়ির কাটা আর নড়ছে না। সাকির ভাবে কেন আগামী কাল তাড়াতাড়ী আসছে না। ছটফটা মন নিয়ে এদিক ওদিক ঘুরে বেড়ায়। আজ কারো সাথে আড্ডা দিতেও মন চাইছে না। একটু ফুরসুত পেলেই ওর সামনে ভেষে উঠে রমার চেহারা। এক সময় অফিস ছুটি হয়। সাকির বাসার দিকে পা বাড়ায়। কিন্তু বাসায় গিয়ে কি করবে ? চোখ বুজে বিছানায় শুয়ে শুয়ে স্বাপ্ন দেখা ছাড়া আরতো কিছু করা সম্ভব নয়। কিন্তু সে জন্য তো সারা রাত পড়ে আছে। সাকির ভাবে সময়টা অন্য কোথাও কাটিয়ে যাই। হাটতে হাটতে গুলিস্তান সিনেমা হলের সামনে গিয়েই চোখ পড়ে নাজ সিনেমায় ইংলিশ ছবির পোষ্টার। কোন কিছু ভাবার আগেই একটি টিকেট কেটে ঢুকে পড়ে নাজে। ইংলিশ ছবি। প্রথম ছবিটা বেশ ভাল। বেশ মনোযোগ দিয়ে দেখলো। পরের ছবিটা দেখে ওর শরীর আবার গরম হয়ে গেল। কারণ ঐ ছবিটা ছিল XX। উলঙ্গ মহিলাদের ছবি। সাকির মিলিয়ে দেখে রমার সাথে ওদের শরীরের পার্থক্য। ওরা উলঙ্গ হলে তেমন কিছু মনে হয় না। কিন্তু রমার খোলা বুকটি দেখেই সাকিরের ভিতরে মোচড় দিয়ে উঠে। হল থেকে বেরিয়ে বাসায় গিয়ে সারা রাত সাকির রমাকে নিয়ে ভাবল। আর ভাবতে ভাবতে কখন যে ঘুমিয়ে পড়েছিল তা মনে করতে পারে না।
পর দিন সকালে উঠে মনে পড়ে আজ রমার সাথে দেখা করতে যাবে। রাতে মনে করে রেখেছে রমাকে একটি ভাল গিফট দিতে হবে। বেচারী সত্যি খুব সরল ও সাদা-সিদা। ওর জন্য মায়া হয় সাকিরের। অফিসে যাওয়ার পথে দোকান থেকে বেশ দামী একটি বিদেশী পারফিউম কিনলো সাকির। তারপর অফিসে এসে প্রস্তুতি নিল যাওয়ার। কিন্তু সময় যেন আগায় না। আসলে অপেক্ষার সময়গুলি এমনি দীর্ঘ হয়।
এক সময় সেই সময় এলো। সাকির রমার গেটে নক করলো। রমা প্রস্তুত হয়েই ছিল। আজ হাসি মুখে দরজা খুলে দাড়ালো। একটু অভিনয় করে বলল-স্বাগতম হে আমার বন্ধুবর।
সাকির রমার এমন আমন্ত্রণ দেখে ঘাবড়ে গেল। ওর মনে সন্দেহ উকি দিল। ভাবলো আজ কোন বিপদে ফেলবে না তো ? আসলে যার মন যেমন তার চিন্তা ধারাও তেমনি। রমা কিন্তু কোন কিছু মনে করে বলেনি। এমনি দুষ্টমি করে অমন করে আমন্ত্রণ জানায় সাকিরকে। সাকির ভয়ে ভয়ে ঘরে ঢুকে চারিদিকে তাকিয়ে লক্ষ করতে চেষ্টা করে কোন কিছু খুজে পাওয়া যায় কিনা। কিন্তু না তেমন কোন চিহ্ন খুজে পেলো না। রমা আজ একটু সেজেই আছে। কপালে একটি লাল টিপ পড়েছে। ফলে ওকে আজ অপূর্ব লাগছে।
কি খাবে ?
তোমাকে খাব।
সেতো খাবেই, এখন কি খাবে, ঠান্ড না গরম ?
ঠান্ড গরম কিছুই খাব না। শুধু তোমাকে খাব। প্রথমতঃ তোমাকে খাব। দ্বিতীয়তঃ তোমাকে খাব এবং তৃতীয়তঃ তোমাকে খাব। সাকির কবিতার ভাষায় অভিনয় করে বলে।
দুজনেই একসাথে হেসে উঠে। রমা একটু দুরে বসেছিল। সাকির উঠে গিয়ে রমার কাছে বসে ওকে জড়িয়ে ধরে। রমা নিজেকে সাকিরের বুকে সপে দিয়ে মুখে বলে-এক্ষনি ?
হা এখুনি। আবার কখন কে এসে পড়ে তাই তাড়াতাড়ি কাজ সারাই ভাল। এরই মধ্যে সাকিরের হাত চলে গিয়েছিল রমার পেটিকোটের নীচে ত্রিকোনাকার ব দ্বীপে। হঠাৎ হাত বের করে বলে তোমার ঐ জঙ্গলে আজ আমার সুন্দর জিনিসটি ঢুকাবো না। জঙ্গল পরিস্কার কর না কেনো ?
সময় পাই কই ? তাছাড়া কে পরিস্কার করে দেবে বলো। একা একা পারা যায় না।
ঠিক আছে আজ আমিই পরিস্কার করে দেব। যাও তোমার দেবতার সেভ করার ব্লেড নিয়ে এসো।
সত্যি কেটে দেবে ? কি লক্ষি তুমি। আমি এখনই এনে দিচ্ছি। বলেই উঠে চলে যায় রমা। ফিরে এসে দেখে খাটের উপর একটি পেপার বিছিয়ে রেখেছে সাকির। বিছানায় পেপার বিছানো দেখে রমা হেসে ওকে জিজ্ঞেস করে কি ব্যাপার পেপার বিছিয়েছো কেন ?
তোমাকে খাতনা করিয়ে দেব।
মানে ?
মানে আমাদের যখন খাতনা করায় তখন যেভাবে বসায় এখন তুমি সেভাবে বসবে। রমার হাত থেকে রেজারটা নিয়ে সাকির রমাকে ঐ কাগজের উপর চিৎ করে শুইয়ে দেয়। শাড়ী পেটিকোট তুলে মাজার উপরে রেখে দু’পা ফাক করে রমার জঙ্গলে ঘেরা ব’দ্বীপে রেজার চালায় সাকির। রমা লজ্জায় অন্য দিকে তাকিয়ে বলে-দেখ কেটে ফেলোনা কিন্তু। আহ্* সুড় সুড়ী লাগছে তো।
সাকির পাকা নাপিতের মত রমার ব’দ্বীপ পরিস্কার করছে। মুখে বলে আহ্* নড়াচড়া করবে না। কেটে গেলে আমি জানি না। ইতোমধ্যে উপরের উচু টিলার মত যে জায়গাটি যা এতোদিন কালো লোমে ঘিরে ছিল তা এখন পরিস্কার হয়ে সাদা ধবধবে মশৃণ মাংশ পিন্ড হিসাবে দেখা দিল। ঠিক এর নিচেই মাংশ পিন্ডটি দু’ভাগ হয়ে গেছে। সাকির খুব সাবধানে রমার ব’দ্বীপের দু’ধার পরিস্কার করতে করতে নিচে নামছে। এবার সেই জায়গাটি যেখানে ঝড়নার পানি পড়ে একটি সুরঙ্গপথ সৃষ্টি হয়েছে। রমার যত সুখ ঐ সুরঙ্গ পথে। রমার ব’দ্বীপটি যে এতো সুন্দর তা সাকির আগে ভাবতে পারেনি। ও কতো মেয়ের ব’দ্বীপই না দেখেছে কিন্তু রমারটা যেন অসাধারণ। এমনটি সাধারণতঃ দেখা যায় না। রমার ব’দ্বীপটি বেশ বড় ও উচু। নরম মাংশ দিয়ে তৈরী এ ব’দ্বীপ। সাকির পরিস্কার কওে দু’হাতের দু আঙ্গুল দিয়ে রমার ব’দ্বীপের দু’পাড় ফাক কওে ভিতরের ঝরনাটি দেখতে চায়। রমা তেড়ে উঠে। এই কি করছো ? অসভ্য। দেখতে দিয়েছি বলে একেবারে ভিতর পর্যন্ত দেখতে হবে? বলে উঠে পড়ে রমা। সাকির বলে যাও আয়না দিয়ে একটু দেখে আস কেমন সুন্দর করে কামিয়ে দিয়েছি।
তা দিয়েছ। কিন্তু আমার জিনিসটি দেখে দেখে তো তোমার মজুরীও উসুল করে নিয়েছ। সাকির হেসে বলে-তা অবশ্য ঠিক। কারণ তোমার ওটা দেখার মত জিনিস। তুমি যদি আমার বৌ হতে তবে রাতে তোমাকে কোন দিন কাপড় পড়তে দিতাম না। তুমি জন্ম দিনের ড্রেস পড়ে আমার সামনে থাকতে। তুমি যে কি তা তুমিও জানোনা তোমার পতি দেবতাও জানে না। শুধু বুঝতে পেরেছি আমি। বলেই জড়িয়ে ধরে চুমুতে চুমুতে রমাকে পাগল করে তোলে। রমা ওর হাত থেকে সরে যেতে চায়। মুখে বলে আহ্* একটু ছাড় আমি রেডি হয়ে নেই। কে কার কথা শোনে। সাকির জড়িয়ে ধরে রমার নরম তুল তুলে নিতম্ব টিপতে থাকে। মাঝে মাঝে দু’ভাগ হয়ে যাওয়া মাংশের মাঝ পথে আঙ্গুল দিয়ে পরখ করে রমার অবস্থা। কারণ রমা উত্তেজিত হলে ওর পিছনটা ভিজে চুপ চুপে হয়ে যায়। এভাবে কিছুন জড়াজড়ি করে রমাকে ছেড়ে দিয়ে বলে এবার তুমি জন্মদিনের পোষাকে সজ্জিত হও।
ওমা আড়চোখে তাকিয়ে বলে-তুমি?
আমিও হচ্ছি। এই বলে সাকির ওর জামা-কাপড় খুলতে শুরু করে। ইতিমধ্যে জড়াজড়ির ফলে সাকিরের ছোট সাহেব বেশ উত্তেজিত হয়েছে। কাপড়ের ভিতর থেকে শুধু জানানি দিচ্ছে যেন তাড়াতাড়ি তাকে বের করা হয়। সাকির সব কাপড় খোলার আগেই রমা জন্মদিনের ড্রেসে খাটের উপর বসে পড়ে। সাকির শেষ কাপড়টি খুলে দন্ডায়িত জিনিসটি নিয়ে রমার সামনে গিয়ে দাড়ায়। রমা ওর দন্ডটিতে আলতো করে হাত লাগাতেই দন্ডটি লাফিয়ে উঠে। রমা খুব উৎসাহ নিয়ে সাকিরের ফরসা দন্ডিটি নেড়ে চেড়ে দেখে। দু’হাত দিয়ে ধওে খলতে থাকে। মাঝে মাঝে স্পঞ্জের মত নরম বুকের ডগায় লাগিয়ে শুড়শুড়ি দেয়। সাকির বলে একটু ভাল কওে আদর করে দাও না।
ভাল করে কেমন করে ? এভাবে হচ্ছে না ?
না হচ্ছে না। ওটাকে মুখে নিয়ে আদর কর।
ছি ! মুখে নেব কেমন করে আমার ঘেন্না করে।
ঘেন্না করলে সেঙ্রে কোন মজাই পাবে না। তাছাড়া আমার মুখে চুমু খেতেতো তোমার ঘেন্না করে না। তাহলে ওটা মুখে দিতে এতো ঘেন্না করছ কেন ?
মুখ আর এটা এক হলো ? এই বলে সাকিরের দন্ডটিকে একটু আলতো করে থাপ্পড় মারে।
মুখের চেয়ে ওটার যত্ন আমি বেশী করি। তুমি জান। আমি যতবার বাথরুমে যাই তুবার ওকে সাবান দিয়ে পরিস্কার করি। আমার শরীরের অন্য অঙ্গ প্রতঙ্গের চেয়ে ওাঁই আমার কাছে বেশী প্রিয়। তুমি চেষ্টা করে দেখ না ভাল লাগবে।
রমা খুব ভাল করে উলটিয়ে পালটিয়ে দন্ডিটি দেখতে থাকে। সত্যি কোথাও একটুও মায়লা নেই। ধীরে ধীরে রমা মুখটা এগিয়ে প্রথমে গালে লাগিয়ে ঘষতে থাকে। তারপর একটু একটু করে ঠোটে। তারপর চোখ বন্ধ করে সাকিরের দন্ডটির গেল মাথাটি মুখের মধ্যে ঢুকিয়ে দেয়। সাকির উত্তেজনায় উহ্* করে ওঠে।
রমা তাড়াতাড়ী ওর মুখ থেকে দন্ডটি বের করে বলে-কি হলো ?
কিছু হয়নি। কি যে সুখ তা তোমাকে বুঝাতে পারবো না। আবার মুখে দাও।
রমা এবার সুন্দর করে সাকিরের দন্ডটি মুখের মধ্যে ঢুকিয়ে জিব দিয়ে চুষতে থাকে। একবার ঢুকায় একবার বের করে। এভাবে রমার বেশ মজাই লাগছে। ও যেন ছোট্ট শিশুর মত খেলনা নিয়ে খেলা শুরু করেছে। এদিকে সাকির উত্তেজনায় রমার মাথাটি ধরে ওর দন্ডের সাথে চেপে ধরে। রমা তখন পাগলের মত সাকিরের দন্ডটি চুষতে শুরু করে দেয়। সাকির এবার রমার মাথার চুল ধরে মাথাটি সরিয়ে দেয়। রমার মুখ থেকে তখন দন্ডটি বেরিয়ে আসে। মুখের লালায় ওর দন্ডটি চিক চিক করছে। সাকির বলে- আর নয় সোনা। আর একটু হলেই তোমার মুখেই বেরিয়ে যাবে। রমা সাকিরকে জড়িয়ে ধরে। সাকির রমাকে নিয়ে এবার বিছানায় শুয়ে পড়ে।
সাকিরের একটি হাত রমার গোপন অঙ্গে স্থাপন করতেই তা ভিজে যায়। পুরো এলাকাটাই ভিজে পিচ্ছল হয়ে গেছে। সাকির ওর বুড়ো আঙ্গুলটি রমার গুহার মধ্যে প্রবেশ করায়। এদিকে মুখ দিয়ে রমার ব্রেষ্টের নিপলে সুড়সুড়ি দেয়। সুড়সুড়ি পেয়ে রাম উত্তেজনায় কেপে কেপে উঠে। সাকির ধীরে ধীরে পুরো আঙ্গুলটি ঢুকিয়ে নাড়াচাড়া করতেই ওর আঙ্গলে একটু শক্ত কিছু অনুভব করে। সাকির আঙ্গুল দিয়ে বুঝতে চেষ্টা করে ওটা কি ? নাড়া চাড়া করতে করতে ও ঐ শক্ত জিনিসের মাথা খুজে পায়। আঙ্গুলের স্পর্শে বুঝতে পারে ঐ শক্ত মাংশ পিন্ডের সামনে একটি মুখ আছে। যেমনটি পুরুষ মানুষের দন্ডের সামনে থাকে। সাকির ঐ মুখটিতে আঙ্গুল লাগিয়ে নাড়া চাড়া করতেই রমা চিৎকার করে মোড় দিয়ে ওঠে। আহ্* মরে গেলাম। কি মজা লাগছে। আমাকে মেরে ফেলো। আমি তোমার শুধু তোমার। বলে সাকেরকে জাপটে ধরে। সাকির বুঝতে পাওে ওটা মেয়েদের দন্ড। ওর ভিতর দিয়েই মেয়েদের তরল পদার্থ বের হয়। যখন পুরুষের দন্ড গিয়ে ঐ দন্ডটিতে ধাক্কা মারে তখন মেয়েদের উত্তেজনা বৃদ্ধি পায়। আর বৃদ্ধির সাথে সাথে এক সময় ঐ মুখ দিয়ে বির্য বের হয়ে সুখ দেয়। সাকির এই নতুন জিনিসটির আবিস্কার করে নিজের মনেই তৃপ্তি অনুভব করে।
রমা তখন চরমে। সাকির আর দেরী না করে উঠে রমার দু’পা নিজের দুই সাইট দিয়ে দু’রানের মাঝে দন্ডটি স্থাপন করে চাপ দেয়। একচাপেই পুরোটা ঢুকে যায়। এবার কয়েকবার নাড়াচাড়া দিতেই রমা ওর দু’পা দিয়ে সাকিরের কোমড় চেপে ধরে। দু’হাত দিয়ে বিছানার চাদর খামছে ধরে গোংড়াতে থাকে। সাকির বুঝতে পারে রমার অবস্থা এখন চরমে। ও রমাকে আরও চরম তৃপ্তি দেয়ার জন্য মুখ নিচু করে ওর ব্রেষ্টের নিপলে আলতো করে কামড় দেয়। রমার চরম সুখ এভাবেই শেষ হয়ে নেতিয়ে পড়ে। সাকির দেকে এই শীতের দিনেও রমা ঘেমে একেবারে নেয়ে গেছে। ওর ভিতর থেকে দন্ডটি বের করে একটু এগিয়ে গিয়ে ফ্যানের সুইচটি টিপে আবার ফিরে আসে রমার কাছে। রমা চোখ মেলে সাকিরের দিকে তাকিয়ে বলে- তোমার হয়েছে ?
সাকির দুষ্টমির হাসি হেসে বলে-না।
হায় ভগবান, আমি আর পারব না। তুমি আজ আমাকে একেবারে শেষ করে দিয়েছ।
ঠিক আছে তোমার কষ্ট হলে থাক। একটু অভিমানের স্বার।
রমা সাকিরের দিকে তাকিয়ে ওর অভিমানি কষ্ঠ শুনে বলে-ঠিক আছে কর।
না রমা তোমাকে আর কষ্ট দিতে চাই না। তোমার তৃপ্তিই আমার তুপ্তি। এই বলে রমার পাশে বসে ওর তলপেটে একটি চুমু দেয়। রমা তাকিয়ে দেখে সাকিরের দন্ডটি বেশ ছোট হয়ে গেছে। এবার ওকে জড়িয়ে ধরে বলে-আরে দুষ্ট তোমারও হয়েছে। শুধু শুধু আমাকে রাগাচ্ছ।
সাকিরও রমাকে জড়িয়ে ধরে ওর অধেরে চুমু দেয়.

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

1PlvD_17050_9aeadabd8172e574de598c611e410eed

Amar ma khub sexy

Eta amar jiboner shob cheye shorinio ghotona. Amar ma khub sexy. Mar boysh 45 bosor. ...